মেনু নির্বাচন করুন

প্রখ্যাত ব্যক্তিত্ব

জনাব জিয়াউল হক জিয়া

ভাদুর ইউনিয়নের অন্তর্গত কেথুড়ী গ্রামের  ওয়াহেদ  আলী বেপারী বাড়ির মরহুম জিতু মিয়ার  ছেলে মরহুম মুক্তি যোদ্ধা জনাব জিয়াউল হক জিয়া   বাংলাদেশ সরকারের  এলজি আইডি ও সমবায়  মন্ত্রনালয়ের প্রতিমন্ত্রী ছিলেন।  কথিত আছে তার এক বন্ধু থেকে শুনা তিনি স্কুল থেকে নোকা করে আসার সময় বন্ধুকে বলে দেখবি আমি এক সময় বড় রাজনীতিবিদ হব , তখন দেখবি এই খানে পাকা রাস্তা থাকবে, বিমানে করে রামগঞ্জে আসবো। বিদ্যুৎ আসবে , রাত্রে শহরের মতো আলো জ্বলবে। তখন  তার বন্ধু তাকে নোকা থেকে ফেলে দেয় হাসতে হাসতে। ঠিক ২০ বছরের মাথায় ঠিকই রামগঞ্জ শহরকে বহু জেলা থেকে ও  বেশী উন্নয়ন করতে তিনি সক্ষম হন। এবং ঘোষনা দেন বেচেঁ থাকলে রামগঞ্জ কে মডেল টাউনে রুপান্তরিত করা হবে।   জীবনের এক পর্যায়ে  এই তুখোড় রাজনীতিবিদ পাকস্থলীর ক্যান্স্যারে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু বরণ করেন। 

 

উপজেলা চেয়ারম্যান :

জনাব শফিকুল ইসলাম সাহেবের বাড়ি ঐতিহ্যবাহি এই ভাদুর ইউনিয়নে ।তিনি নির্বাচিত হওয়ার পর দূর্নীতি শূন্যর কোটায় এনছিলেন। রামগঞ্জ উপজেলা যতদিন থাকবে জনাব শফিকুল ইসলাম সাহেবকে মানুষ সম্মানের সাথে স্বরণ করবে।

ইউপি চেয়ারম্যান ঃ 

 

 আলহ্বাজ মরহুম  তোফায়েল আহম্মেদ ছিলেন এমন একজন রাজনীতিবিদ যিনি স্বাধিনতা পরবর্তী সময়ে আওয়ামীলীগের অভিভাবকের দায়িত্ব গ্রহন করেছেন।এবং তিনি ছিলেন একজন রাজনীতিবিদ যিনি প্রতিটি মানুষের মন জয় করতে পেরেছেন।যার ফলশ্রুতিতে তাহারসুযোগ্য সন্তান জনাব জাহিদ হোসেন বর্তমান সফল ও প্রশংসিত চেয়ারম্যান হিসাবে অত্র ইউনিয়নে সুপরিচিত।